শনিবার, এপ্রিল ১৩, ২০২৪
Led05রাজনীতি

বিএনপিকে শামীম ওসমান ‘অনেকে এই অপরাধী দল থেকে বেরিয়ে আসবে’

লাইভ নারয়ণগঞ্জ: ‘বিএনপির মধ্যে দুটি গ্রুপ বিদ্যমান। একটা আম্মা গ্রুপ আরেকটা ভাইয়া গ্রুপ। ভাইয়া গ্রুপের লাথি খেয়ে আম্মা গ্রুপ সাইড লাইনে চলে যাওয়ার বহিঃপ্রকাশ হলো তৃণমূল বিএনপি। সব দলেই ভালো খারাপ আছে, কালাম সাহেব, জালাল হাজী সাহেব, তৈমূর আলম খন্দকার সাহেব, সিরাজ সাহেব। এই লোক গুলো পরিশ্রম করেছ, কিন্তু তাদের ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। লন্ডন থেকে যে পরিচালনা করছে, আমর মনে হয় সে রাজনীতি করতে চায় না, সে এই দেশটাকে অকার্যকর করে দিতে চাচ্ছে। তার জন্য যেমন নেতৃত্ব দরকার উনি তাদের বেছে নিয়েছেন। মাত্র তো শুরু হলো, আরও অনেক মানুষ এই অপরাধী দল থেকে বেরিয়ে আসবে।’


বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে নারায়ণগঞ্জ জেলা আনসার ও গ্রাম পুলিশ প্রতিরক্ষা বাহিনীর, জেলা সম্মলনে প্রধান অতিথি হিসেনে বক্তব্যকালে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, স্বাধীন হওয়ার পর দেশটা একটা কঙ্কাল ছিলো, সাড়ে ৩ বছরে দেশটাকে ভিন্ন দিকে নিয়ে আসছিলো, আমরা হয়তো জাপানের থেকে উন্নত দেশ থাকতাম। বঙ্গবন্ধু ছিলেন আমাদের কৈশর আমাদের যৌবন। আসলে উনাকে হত্যা করা হয়নি। আমাদের কৈশর এবং যৌবনকে হত্যা করা হয়েছে। আমাদের সাথে প্রধানমন্ত্রীর অনেক ক্ল্যাশ হত। আমাদের অবস্থা তখন প্যালেস্টাইনের যুবকদের মত। আমরা বলতাম হত্যার বদলে হত্যা চাই। শেখ হাসিনা বলতেন না, আমি আমার পিতার হত্যার বিচারের জন্য এসেছি মানুষকে অর্থনৈতিক মুক্তি দিতে চাই।

শামীম ওসমান বলেন, পদ্মাসেতু হওয়ার পর আমাদের জিডিপি দশের উপরে চলে যেত যদি রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ না হত। বিশেষজ্ঞরা বলছে বাংলাদেশ ২০৪০ সালের মধ্যে বিশ্বের প্রথম দশটি ধনী দেশের একটি হবে।

আনসার ও গ্রাম পুলিশ প্রতিরক্ষা বাহিনীর সর্ম্পকে তিনি বলেন, আরেকবার সুযোগ যদি পাই। আমি আপনাদের কাছে অনুরোধ করতে চাই আনসারে কী কী সমস্যা আছে আমাকে একটু লিখে দিবেন। আমি শান্তি পাব যদি আমি জাতীয় সংসদে আপনাদের পক্ষে কোন কথা বলতে পারি।

তিনি আরও বলেন, আমার রাজনীতি করার কথা না৷ চন্দনের দু পা হারানোর কথা ছিল না। বাংলাদেশ আজ অন্য পর্যায়ে থাকার কথা ছিল। আমরা বেইমানি করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে মেরেছি। শুধু তাকে নয় পুরো পরিবারকে মেরে ফেলা হয়েছে। আপনি যদি শেনেন আপনার পরিবারের আপনি ছাড়া সকলকে মেরে ফেলেছে আপনার কী হবেন। হয় আপনি পাগল হবেন নয়ত আপনি খুনী হবেন। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম।

শামীম ওসমান আরও বলেন, বিএনপির মধ্যে দুটি গ্রুপ বিদ্যমান। একটা আম্মা গ্রুপ আরেকটা ভাইয়া গ্রুপ। ভাইয়া গ্রুপের লাথি খেয়ে আম্মা গ্রুপ সাইড লাইনে চলে যাওয়ার বহিঃপ্রকাশ হলো তৃণমূল বিএনপি। সব দলেই ভালো খারাপ আছে, কালাম সাহেব, জালাল হাজী সাহেব, তৈমূর আলম খন্দকার সাহেব, সিরাজ সাহেব। এই লোক গুলো পরিশ্রম করেছ, কিন্তু তাদের ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। লন্ডন থেকে যে পরিচালনা করছে, আমর মনে হয় সে রাজনীতি করতে চায় না, সে এই দেশটাকে অকার্যকর করে দিতে চাচ্ছে। তার জন্য যেমন নেতৃত্ব দরকার উনি তাদের বেছে নিয়েছেন। মাত্র তো শুরু হলো, আরও অনেক মানুষ এই অপরাধী দল থেকে বেরিয়ে আসবে।

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগ তার নিজস্ব গতিতে চলে, বিএনপি ভাঙ্গলো কি ভাঙ্গলো না, এটা নিয়ে আমাদের কোন সমস্যা নাই। বঙ্গবন্ধু দুইটা জিনিসে বিশ্বাসী। একটা হলো উপর ওয়ালঅ, আরেকটা জনগণ। এর বাইরে কে কি করলো ‘উই ডোন্ট কেয়ার’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

RSS
Follow by Email