সোমবার, মে ২০, ২০২৪
Led02অর্থনীতি

জার্মানে রপ্তানি বাড়াতে বিকেএমইএ ও বিডব্লিউএ’র সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বাংলাদেশের রপ্তানি ও দ্বিপাক্ষিক ব্যবসায়িক সম্পর্ক বাড়াতে দুই সংস্থার মধ্যে সহযোগিতা প্রতিষ্ঠার জন্য এক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে বাংলাদেশি সংগঠন নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিকেএমইএ) এবং জার্মান সংগঠন ফেডারেল অ্যাসোসিয়েশন ফর ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড ফরেন ট্রেড (বিডব্লিউএ)।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষের উপস্থিতিতে এবং বিডব্লিউএ বোর্ডের চেয়ারম্যান মাইকেল শুম্যান, জার্মান বিডব্লিউএ-এর ফেডারেল ব্যবস্থাপনা পরিচালক উরস উনকাউফ এবং বিকেএমইএ’র নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম তাদের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন।

সোমবার (২৯ আগস্ট) বার্লিন বিডব্লিউএ অফিসের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

তপন কান্তি ঘোষ বর্তমানে জার্মানিতে সরকারি সফরে একটি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। বিকেএমইএ প্রতিনিধিত্বকারী প্রতিনিধি দল যেখানে সংগঠনের সহ-সভাপতি ফজলি শামীম এহসান, অমল পোদ্দার, মোহাম্মদ রাশেদ এবং মোঃ সামসুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিনিধি দলটি দেশগুলির মধ্যে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বাড়াতে বিভিন্ন ফেডারেল মন্ত্রকের সাথে একাধিক উচ্চ-পর্যায়ের দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে নিযুক্ত রয়েছে বলে জানা গেছে।

সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে তপন কান্তি ঘোষ এই বৈঠকগুলির ফলাফল সম্পর্কে তার আশা ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্ককে আরও এগিয়ে নিতে এবং অর্থনৈতিক সহযোগিতার জন্য নতুন দ্বার উন্মোচনের ক্ষেত্রে তাদের তাৎপর্যের ওপর জোর দেন। আলোচনায় বাণিজ্য নীতি, বিনিয়োগের সম্ভাবনা এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে দক্ষতা বিনিময় সহ বিস্তৃত বিষয় অন্তর্ভুক্ত ছিল বলে জানান তিনি।

বাণিজ্য সচিব বলেন, এই সফর এবং পরবর্তী চুক্তিগুলো বাংলাদেশ ও জার্মানির স্থায়ী ও ফলপ্রসূ সম্পর্ক গড়ে তোলার অঙ্গীকার প্রতিফলিত করে যা উভয় দেশের অগ্রগতি ও সমৃদ্ধিতে অবদান রাখবে।

এর আগে, বার্লিনে জার্মান মন্ত্রণালয়ে তপন কান্তি ঘোষ এবং জার্মান ফেডারেল মিনিস্ট্রি অফ ইকোনমিক্স অ্যান্ড ক্লাইমেট অ্যাকশন (বিএমডাব্লিউকে) এর স্টেট সেক্রেটারি মাইকেল কেলনারের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ দ্বিপাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বিকেএমইএ’র প্রতিনিধিদলও অংশ নেয়।

তপন কান্তি ঘোষ এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে গ্রাজুয়েশনসহ বাংলাদেশের সাম্প্রতিক উন্নয়নের কথা উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, বর্তমানে ইইউ রেগুলেশন, বাংলাদেশ ২০২৬ সালে উন্নয়নশীল দেশগুলিতে স্নাতক হওয়ার পর তিন বছরের জিএসপি উপভোগ করবে, সিনিয়র সচিব তার সমকক্ষকে বিদ্যমান জিএসপি ছয় বছরের জন্য বাড়ানোর জন্য বলেছেন।

ইউরোপের একটি বড় অর্থনীতি হিসেবে জার্মানি এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। কেলনার বাংলাদেশের সাফল্যের গল্প এবং দেশের উল্লেখযোগ্য অর্জন সম্পর্কে মন্তব্য করেন।

তিনি উল্লেখ করেছেন যে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ডিউ ডিলিজেন্স আইন তৈরির শেষের কাছাকাছি এবং তারপরে জার্মান আইনটি ইইউ আইনের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হবে। বৈঠকের সমন্বয় করেন জার্মানির বার্লিনে বাংলাদেশ দূতাবাসের মন্ত্রী (বাণিজ্যিক) সাইফুল ইসলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

RSS
Follow by Email