সোমবার, মে ২০, ২০২৪
Led05অর্থনীতিরাজনীতি

না.গঞ্জ থেকে ১০ মিলিয়ন ডলারের নীট পোশাক রপ্তানি হয়: সেলিম ওসমান

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও বিকেএমইএ‘র সভাপতি একেএম সেলিম ওসমান বলেছেন, এক সময় পাটের জন্য বিখ্যাত ছিল আমাদের নারায়ণগঞ্জ। হোসিয়ারী শিল্প ছিল কিছু। পাটকল গুলো যখন বন্ধ হয়ে যাচ্ছিল, তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হোসিয়ারী শিল্পকে রপ্তানি পণ্যে রূপ দিতে ১৯৯৬ সালে বিকেএমইএ গঠন করার নির্দেশ দেন। আজকে শুধু নারায়ণগঞ্জ শহর থেকে ১০ মিলিয়ন ডলারের নীট পোশাক রপ্তানি হয়। এখন আমরা আর কিছু চাই না, শুধু নিরাপত্তা চাই।শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়ায় বিকেএমইএর নতুন ভবন উদ্বোধনে এ কথা বলেন তিনি।

সেলিম ওসমান বলেন, নীটওয়ার বেশিরভাগই এ নারায়ণগঞ্জ থেকে রপ্তানি হয়। নারায়ণগঞ্জের বিসিককে শিল্প নগরী করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক এসপি ডিসি তারা সবাই নিরাপত্তার জন্য কাজ করছে। শিল্প পুলিশ দায়িত্ব নিয়ে কাজ করছে। মালিক শ্রমিক যেই অশান্তি সৃষ্টি করবে তার বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেয়া হবে। আমরা রাজনীতি করি বা না করি। অপরাজনীতি যেন সৃষ্টি না হয় আমাদের সে ব্যাবস্থা নিতে হবে। নারায়ণগঞ্জে কোন ব্যাবসায়ী এমন কাজ করবেন না। অপরাজনীতি করার জন্য কেউ নিজের পকেট থেকে পয়সা দিবেন না। তাহলে কিন্তু নারায়ণগঞ্জে ব্যবসা করতে পারবেন না।

তিনি আরও বলেন, আমরা ২০১৬ সালে এটার ফাউন্ডেশন দিয়েছিলাম। আজ আমরা বিল্ডিংটি উদ্বোধন করতে পেরেছি। সাধারণ সদস্যদের চাঁদার পয়সা এখানে। পয়তাল্লিশ কোটি টাকা খরচ করে আমরা এ বিল্ডিংটি উদ্বোধন করতে পেরেছি এমন একজন ব্যাক্তির হাতে যার কারণে আমরা শান্তিতে ব্যাবসা করতে পারছি। আমি শামীমকে অনুরোধ করেছিলাম যে আমি উনার মত মানুষ চাই এটা উদ্বোধন করতে। আমরা সবাই এখানে ব্যবসায়ী। বাংলাদেশে কোথাও এমন আছে বলে আমি বিশ্বাস করি না, ৪৭টি সংগঠন একসাথে বসে সমস্যা সমাধান করে। এটা আর কোথাও নেই। আমরা শেখ হাসিনার কাছে কৃতজ্ঞতা জানাই। আমরা তাদের কথা রাখতে পেরেছি।

বিকেএমইএ সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিমের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান ও বিকেএমইএর নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জের সাবেক নারী সংসদ সদস্য হোসনে আরা বাবলী, নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল, সিনিয়র সহ-সভাপতি মনসুর আহমেদ, সহ-সভাপতি মো: রাশেদ, গাওহার সিরাজ জামিল, ফজলে শামীম এহসান, অমল পোদ্দার, আকতার হোসেন অপূর্ব উপস্থিত ছিলেন।

সহ-সভাপতি (অর্থ) মোরশেদ সারোয়ার সোহেলসহ ১২০০ ব্যবসায়ী উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

RSS
Follow by Email