শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
শিক্ষাসদর

স্বজন সমাবেশের আড্ডায় মুজিবুল হক কবীর

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: যুগান্তর স্বজন সমাবেশ নারায়ণগঞ্জ জেলা সভাপতি জাহাঙ্গীর ডালিম এর উদ্যোগে সাহিত্য আড্ডায় কবি ও প্রাবন্ধিক শিক্ষক মুজিবুল হক কবীর স্যারের সাথে নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজ পাঠাগারে দুপুর ৪.৩০ মিনিটে (৯ অক্টোবর) সোমবার স্বজন সমাবেশের স্বজনদের সাথে আড্ডা । ৩৫ বছর এই হাই স্কুলে শিক্ষাগতা করেছিলেন মুজিবুল হক কবীর স্যার। সেই স্কুলের ছাত্র ছিলেন জাহাঙ্গীর ডালিম। ৯৫ সালে এসএসসি পাস করেছিলেন। তার শিক্ষা গুরুর সাথে নারায়ণগঞ্জ এর সাহিত্য নিয়ে স্বজনেরা অনেক কথা বলেন এবং অনেক কিছু অজানা সাহিত্য নিয়ে তারা জানতে পেরেছেন যুগান্তর স্বজন সমাবেশের স্বজনরা। স্যারের প্রথম কবিতা বই বের হয় ১৯৭২ সালে। সত্তর দশকের কবি, সত্তর দশক ছিল যুদ্ধোত্তর কাল। সদ্য স্বাধীনতা লাভ করা বাংলাদেশে চলছিল পাওয়া না পাওয়া অনেক হিসাব-নিকাশ। সেই ঢেউ এসে লেগেছিল সাহিত্যের স্বর্ণালী শরীরেও। প্রত্যক্ষ যুদ্ধের অভিজ্ঞতা, যুদ্ধোত্তর দেশের অনেক ঘটনা বদলে দিয়েছিল কবিতার শরীর, ভাষা, শব্দ। বদলে দিয়েছিল কবিদের দৃষ্টিকোণ। মুজিবুল হক কবীরের কবিতাতেও লেগেছিল সেই ঢেউ। সেই বিক্ষুদ্ধ তরঙ্গ তাই প্রথম থেকে তার কবিতা প্রবাহ অগ্রসর পেয়েছে কখনো মানবীর দিকে কখনো রাজনীতি অভিমুখে, একটি উত্তাল সময় পেরিয়ে আসার কারনই হয়তো তাঁর কবিতার প্রথম থেকে এখন পর্যন্ত রাজনৈতিক চিন্তা একটি প্রধান স্তম্ভ। তবে প্রেমও প্রবল প্রতাপে প্রবাহিত হয়েছে কবিতার বুকে। পুরান সমকাল ভাবনা দিয়ে নির্মাণ করেছেন তাঁর প্রেমের কবিতা, রাজনৈতিক কবিতার শরীর। তবে আজ তোমাকে মুজিবুল হক কবীরের প্রেমের কবিতা যাই হোক, রাস্তা দিয়ে ধুমকেতুর মতো হুস করে গাড়ী যাওয়ার সময় জানান দিয়ে যাচ্ছে রাত আর বেশি নেই। তাই এখানেই শেষ করছি মুজিবুল হক কবীর স্যারের খুব প্রিয় একটি কবিতা শেষ দুই শবক শুনিয়ে যাচ্ছি।

তুমিহীন এ-ঘর আমাকে পোড়ায়
ঘুমহীন ঘুমের ভিতরে
মৃদুস্বরে ডাকো তুমি,
আমি শুনি।
তুমিহীন রজনীগন্ধার বন-তবু
তুমি দিন ও রাত্রির গন্ধ নিয়ে
জড়িয়ে আছো তোমার অনুভবে
শ্বাস-প্রশ্বাসে।
[কোথাও তুমি নেই মুজিবুল হক কবীরের কবিতায়]

জন্ম: ১১ এপ্রিল, ১৯৫২, জন্মস্থান: পাইকপাড়া, নারায়ণগঞ্জ, পিতা- সিরাজুল হক, মাতা- জাহানারা হক। কাব্যগ্রন্থ: পা যে আমার অনড় পাথর (১৯৮৭), লোপামুদ্রা ও অন্যান্য কবিতা (১৯৯১), আমি ও আমার প্রতিবিম্ব (২০০০), রাতের শিরায় আগুন (২০০১), মুজিবুল হক কবীরের কবিতা (২০০৩), জলের অদ্ভুত সঙ্গীত (২০১০), অগ্নিগর্ভ দিন (২০১১), নির্বাচিত কবিতা (২০১২), শূণ্যে বেঁধেছি ঘর (২০১৫), আধেক হৃদয় দিয়েছি তোমাকে (২০১৯)। প্রবন্ধগ্রন্থ ঃ ছন্দের ঘরবাড়ি (২০০২, ২০১৩), ছন্দের মায়ামৃগ ও অন্যান্য ভাবনা (২০১১), পর্ব থেকে পর্বান্তরে (২০১৩), অনুভূতির ডালপালা (২০১৫), নির্বাচিত গদ্য (২০১৭), ছন্দশিল্প: রবীন্দ্রনাথ (২০২০), নজরুল ঃ ছন্দের অন্তর্বয়ন (২০২০)। অনুবাদ: সাধের ভেলায় (শিশুতোষ, ২০১১), সোনালি কাক (শিশুতোষ, ২০১২), এ নীরবতার বিস্তৃতি বহুদূর (২০১৩) জল রঙে আঁকি নক্ষত্রের খোঁপা (২০১৪), ইংরেজী অনুবাদ ঃ সিলেক্টেড পোয়েমস অব মুজিবুল হক কবীর (২০১৬), আই পেইন্ট ইনদ্যা সাইলেন্ট ক্যানভাস (২০১৭)।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মোঃ মিরাজ মিয়া, সহকারী শিক্ষক, নারায়ণগঞ্জ হাইস্কুল এন্ড কলেজ, স্বজন সমাবেশ নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি জাহাঙ্গীর ডালিম, সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম, ক্রীড়া সম্পাদক মনি তালুকদার ও সদস্য মোঃ সোহেল প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

RSS
Follow by Email